Wednesday, April 17, 2024

জিম সিমন্সের সফলতার গল্প

জেমস হ্যারিস সিমন্স বা জিম সিমন্স, যিনি “ Quant King” নামেই সর্বাধিক পরিচিত এবং সর্বকালের সেরা বিনিয়োগকারী হিসেবে সমাদৃত। তিনি সবচেয়ে বেশি খ্যাতি লাভ করেন বিশ্বের অন্যতম সফল Quant Fund, Renaissance Technologies (“Rentec) শুরু করার মাধ্যমে। সিমন্স ১৯৮২ সালে মাত্র ৪৪ বছর বয়সে রেন্টেক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তিনি তার দায়িত্ব থেকে অবসর নেয়ার পূর্বে ২০১০ সাল পর্যন্ত কোম্পানির প্রধান এবং সিইও (প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা) হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। তিনি এখনও অ-নির্বাহী প্রধান হিসাবে সেখানে রয়েছেন। 

  • Quant Fund, Renaissance Technologies (“Rentec”) এবং তার flagship Medallion Fund এর জন্য জিম সিমন্স সর্বকালের সেরা বিনিয়োগকারী হিসেবে গণ্য। 
  • তিনি তার দায়িত্ব থেকে অবসর নেয়ার পূর্বে ২০১০ সাল পর্যন্ত কোম্পানির প্রধান এবং সিইও (প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা) হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। ফাইন্যান্সে ক্যারিয়ার গড়ার পূর্বে, সিমন্স একজন দক্ষ গণিতবিদ হিসেবে পরিচিত ছিলেন এবং এমআইটি, হার্ভার্ডে পড়ানোর পাশাপাশি স্টনি ব্রুক ইউনিভার্সিটিতে গণিত বিভাগের প্রধান  হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। 
  • ২০২১ সালে ফোর্বস এর হিসেব অনুযায়ী, জিম সিমন্সের মোট সম্পত্তির মূল্য ২৩.৫ বিলিয়ন  ইউএস ডলার এবং ফোর্বস তাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ২৩ তম ধনী ব্যক্তি হিসেবে ঘোষণা করেছে।

জীবনের প্রথমভাগ এবং শিক্ষাজীবনঃ 

১৯৩৮ সালে ব্রুকলিন এর ম্যাসে জন্মগ্রহণ করেছিলেন জিম সিমন্স এবং খুব অল্প বয়সেই গণিতের প্রতি তার গভীর ভালোবাসা তৈরি হয়। তার দুর্বল স্মৃতিশক্তির কারণে তাকে স্টক বয়ের কাজ থেকে মেঝে মোছার কাজ দেয়া হয় একটি বাগান সামগ্রী বিক্রির দোকানে । যাইহোক, সিমন্স খুবই চতুর ছিলেন এবং ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজিতে (এমআইটি) গণিতবিদ হওয়ার উচ্চভিলাষী পরিকল্পনা করেছিলেন। 

১৯৫৫ সালে সিমন্স এমাইটিতে পড়ার সুযোগ পায় এবং তার মূল বিষয় ছিল গণিত। স্নাতক শেষ করার পর, সাইমন্স গণিত বিষয়ে ডক্টরেট করার জন্য বার্কলের ক্যালিফোর্নিইয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন। তার গবেষণার মূল বিষয় ছিল Riemannian manifolds এর  holonomy গ্রুপের Berger এর শ্রেণিবিন্যাসের পক্ষে প্রমাণ প্রদান করা। এর ঠিক এক বছর পরেই ১৯৬১ সালে মাত্র ২৩ বছর বয়সে তিনি ডক্টরেট ডিগ্রী লাভ করেন। 

পরবর্তীতে, সিমন্স Chern-Simons form এর মতো গুরুত্বপূর্ণ গাণিতিক তত্ত্ব নিয়ে কাজ করেন, যা পরবর্তীতে টপোলজিকাল কোয়ান্টাম ফিল্ড তত্ত্বে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। তিনি গণিতে খুব দ্রুত সফল ক্যারিয়ার গড়ে তুলেছিলেন, একাধিক পুরস্কার জিতেছিলেন, এবং পরবর্তীতে ইউএস ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্সে যোগদান করেন। 

১৯৬৪ সালে, সিমন্স The Institute for Defense Analyses (আইডিএ) যোগ দেন, যেখানে তিনি ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় গুরুত্বপূর্ণ কোড সমাধান করতে মূল ভূমিকা পালন করেছিলেন। এর চার বছর পর সিমন্স আইডিএ ছেড়ে এমআইটি এবং হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিত শেখানো শুরু করেন। 

অবশেষে, তিনি স্টোনি ব্রুক ইউনিভার্সিটিতে গণিত বিভাগের প্রধান পদে নিযুক্ত হন, যেখানে তিনি গণিত এবং পদার্থবিজ্ঞান বিষয়ের উন্নতির ব্যাপারে সহায়তা করেছিলেন, যা  এখনও আইবিএমের মতো কোম্পানিগুলি তাদের অনুসন্ধানের কাজে তার পরামর্শগুলো অনুসরণ করে। এরপর ১৯৭৮ সালের পর থেকে তিনি অর্থনীতি বিষয়ের দিকে মনোনিবেশ করেন। 

বিনিয়গের মূলতত্ত্ব এবং সফলতার গল্পঃ

ইতোমধ্যে গণিত বিষয়ে অনেকবার পুরস্কৃত হয়ে এবং আইডিএ এর সেরা কোড সমাধানকারীর খেতাব লাভ করার সত্ত্বেও তিনি অর্থনীতি বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়ার সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৭৮ সালে এই প্রখ্যাত গণিতবিদ Hedge Fund Monemetrics শুরু করেন যা পরবর্তীতে Renaissance Technologies এর সফলতার অগ্রদূত হিসেবে গণ্য হয়। 

সাইমন্স প্রথমে তার Hedge Fund এ গণিত প্রয়োগ করার কথা ভাবেননি কিন্তু পরে সময়ের সাথে সাথে তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, আর্থিক তথ্যগুলিতে নির্দিষ্ট গতিবিধি সন্ধান করে ডেটা ব্যাখ্যা করার জন্য গাণিতিক এবং পরিসংখ্যানগত মডেল ব্যবহার করে ভবিষ্যতের রিটার্নের পূর্বাভাস দেওয়া যাবে। 

১৯৮৮ সালে ,কোন ব্যবসা দিয়ে শুরু করবেন তা ঠিক করার জন্য সিমন্স কোয়ান্টেটিভ এনালাইসিস ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেন। সিমন্স তার ফান্ডে কাজ করার জন্য গণিত,ডেটা এনালাইসিস এবং অন্যান্য বৈজ্ঞানিক শাখায় দক্ষ বিশেষজ্ঞদের নিয়োগ করেন। কোয়ান্ট কিং গণিতবিদ, পদার্থবিদ, প্রোগ্রামার, ক্রিপ্টোগ্রাফার দিয়ে তার ফান্ড পরিপূর্ণ করে ফেলেন। এই বিজ্ঞানীদের তৈরি জটিল গাণিতিক সূত্রের জন্যই কোম্পানিটি এত সমৃদ্ধশালী হয়ে উঠে। 

কোম্পানি প্রতিষ্ঠার পর থেকে, Renaissance Technologies’ flagship fund, the Medallion hedge fund ১৯৯৪ থেকে ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে গড়ে বার্ষিক ৭১.৮% রিটার্ন সহ ১০০ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি ব্যবসায়িক মুনাফা অর্জন করেছে।  দুর্ভাগ্যবশত, Medallion hedge fund কেবল তার কর্মচারী এবং পরিবারের সদস্যদের জন্য উন্মুক্ত।

বর্তমান মোট সম্পত্তি এবং প্রভাবঃ

২০২১ সালে ফোর্বস এর হিসেব অনুযায়ী, জিম সিমন্সের মোট সম্পত্তির মূল্য ২৩.৫ বিলিয়ন  ইউএস ডলার এবং ফোর্বস তাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ২৩ তম ধনী ব্যক্তি হিসেবে ঘোষণা করেছে। এই কোয়ান্ট কিং ফোর্বস 2019-এর সর্বোচ্চ উপার্জনকারী Hedge fund ম্যানেজারের তালিকায় প্রথম স্থান অধিকার করেন। 

সিমন্স বৈজ্ঞানিক জগতে অসাধারণ প্রভাব বিস্তার করে আসছেন এবং ১৯৯৪ সালে তার স্ত্রী মেরিলিন সিমন্সের সাথে “সিমন্স ফাউন্ডেশন” প্রতিষ্ঠা করেন। সিমন্স ফাউন্ডেশন বৈজ্ঞানিক গবেষণা, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যখাতে সাহায্য করার জন্য নিয়োজিত। সিমন্স এই খাতে তার সম্পদের ২.৭ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি দান করেছেন এবং সেইসাথে অটিজম গবেষণাতেও সাহায্য করেছেন।

এর পাশাপাশি, সিমন্স “ম্যাথ ফর আমেরিকা” প্রতিষ্ঠা করেন, যার লক্ষ্য হলো গণিত এবং বিজ্ঞান শিক্ষকদের তাদের দায়িত্ব পালনে উৎসাহিত করা এবং তাদের শিক্ষণ ক্ষমতাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ায় সাহায্য করা।

জিম সিমন্সের বিখ্যাত উক্তিঃ 

জিম সিমন্স বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক শাখার মেধাবী এবং দক্ষ ব্যক্তিদের খুঁজে বের করায় ছিলেন পারদর্শী। যাইহোক, সিমন্স সবার সামনে আসতে খুব বেশি পছন্দ করতেন না এবং খুব বেশি ইন্টারভিউতেও অংশগ্রহণ করতেন না। তার নিম্নোক্ত উক্তিগুলোই প্রমাণ করে কিভাবে তিনি Renaissance Technology প্রতিষ্ঠা করেন এবং সফলতা অর্জন করেন। 

“ মহান ব্যক্তি, অসাধারণ অবকাঠামো, উন্মুক্ত পরিবেশ এবং প্রত্যেকের সামগ্রিক কাজের উপর ভিত্তি করে তাদের মূল্য দেয়া। এই পদ্ধতি অনেক অর্থ উপার্জন করেছে।”

“ আমরা অসঙ্গতিপূর্ণ বিষইয়গুলো অনুসন্ধানে ঐতিহাসিক তথ্যগুলোর ব্যবহার করি যা স্বভাবত ঘটবে বলে আমরা আশা করি না।”

“ আপনার অতীতের সম্পাদিত কাজ আপনার সফলতার সবচেয়ে উত্তম নির্ধারক।”

“ আমাদের তিনটি মানদণ্ড রয়েছে: যদি এটি সর্বজনীনভাবে বিক্রি হয়, তরল এবং প্রদর্শনের জন্য উপযুক্ত, আমরা এটি বিক্রি করি।”

“ কার্যকরী বাজার তত্ত্ব সঠিক এজন্য  যে এতে কোন সামগ্রিক অদক্ষতা নেই। কিন্তু আমরা সেই অসঙ্গতিগুলিকেই দেখি যা আকারে ছোট এবং সময় সংক্ষিপ্ত। আমরা আমাদের পূর্বাভাস তৈরি করি। তারপরেই, আমরা পরিস্থিতি পুনর্মূল্যায়ন করি এবং আমাদের পূর্বাভাস পুনর্বিবেচনা করি সাথে আমাদের জীবনবৃত্তান্তও। আমরা সারাদিন এমনটাই করে থাকি। আমরা সারাক্ষণ ভিতর বাহির ,ভিতর বাহির করতে থাকি। তাই আমরা টাকা কামানোর উপরই নির্ভরশীল। ”

“ আমি তাদেরকে অপছন্দ করি যাদের জন্য মডেল তৈরি করা একটি খণ্ডকালীন শখ ছিল।” ২০১১ সালে এমাইটি তে একটি ভাষণ দেয়ার সময় সিমন্স এই উক্তিটি করেন। যারা মডেল-নির্মাণকে বাস্তব জগতে উপকারী বলে মনে করে না তাদের উদ্দেশ্য করে সিমন্স এই মন্তব্য করেছিলেন।

জিম সিমন্সের ব্যপারে প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলীঃ

  • জিম সিমন্স কি সর্বকালের সবচেয়ে সফল বিনিয়োগকারী?

= জিম সিমন্স সবচেয়ে ধনী Hedge fund ম্যানেজার এবং ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল তাকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারী বলে ঘোষণা করেছে। যদিও সাফল্য বিষয়টা ব্যক্তিগত , তাই ওয়ারেন বাফেটের মতো অন্যান্য বিনিয়োগকারীদেরকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বিবেচনা করা হয়। 

  • জিম সিমন্সের কৌশল কী?

= জিম সিমন্স বাজারের অদক্ষতার উপর ভিত্তি করে কোন ট্রেডে প্রবেশ করবেন তা নির্ধারণ করার জন্য পরিমাণগত বিশ্লেষণ ব্যবহার করেন। 

  • আমি কি Medallion fund এ বিনিয়োগ করতে পারি?

= দুর্ভাগ্যবশত, Medallion fund বাইরের বিনিয়োগকারীদের জন্য বন্ধ এবং শুধুমাত্র Renaissance Technology বর্তমান এবং অতীত কর্মচারীদের জন্য উপলব্ধ।

  • সবচেয়ে ধনী Hedge fund ম্যানেজার কে?

= ফোর্বসের মতে, জিম সিমন্স আমেরিকার সবচেয়ে ধনী Hedge fund ম্যানেজার।

  • শীর্ষ হেজ ফান্ড ম্যানেজাররা কত টাকা উপার্জন করেন?

= ফোর্বসের সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, শীর্ষ ১০ জন Hedge fund ম্যানেজার বছরে ৫০০ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি উপার্জন করে, যা ১ বিলিয়ন ডলার পর্যন্তও পোঁছে যায়। জিম সিমন্স বর্তমানে সবচেয়ে ধনী Hedge fund ম্যানেজার এবং ২০১৭ সালে তিনি ১.৬ বিলিয়ন ডলার উপার্জন করেছেন।

পরিসমাপ্তিঃ

একজন অসম্ভব দক্ষ গণিতবিদ ১৯৮২ সালে ওয়াল স্ট্রিটে বৈপ্লবিক পরিবর্তন নিয়ে আসেন।  জিম সিমন্স এবং তার Renaissance Technology  এর কোয়ান্ট ফান্ড অনুসরণীয় উদাহরণ রেখে গিয়েছে যা চিরতরে অর্থনীতির জগৎকে বদলে দেবে।

Businesses BDhttps://www.businesslinear.com/
Lorem ipsum is a placeholder text commonly used to demonstrate the visual form of a document or a typeface without relying on meaningful content

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles